1. psbd@gmail.com : Crazy VFX Media : Crazy VFX Media
  2. rafi@bdyoutubecommunity.com : Rafi Bhuiyan : Rafi Bhuiyan
যে ৪ টি ভুল ইউটিউবে কখনো করা যাবে না
ভুল ইউটিউবে কখনো করা যাবে না
Rafi Bhuiyan
  • 4 months ago
  • 256
যে ৪ টি ভুল ইউটিউবে কখনো করা যাবে না

আসসালামুআলাইকুম বন্ধুরা আশা করি সবাই ভাল আছেন আজ আমি আপনাদেরকে শেয়ার করব যেসব ভুল ইউটিউবে কখনোই করা যাবে না। অর্থাৎ আপনি যদি একজন সফল ইউটিউবার হতে চান তবে আমাদের শেয়ার করা এসব ভুল কখনোই আপনি করবেন না। আর এজন্যই আজকে আমাদের আলোচনার বিষয়বস্তুর নাম হলো যে ৪ টি ভুল YouTube এ কখনোই নয়। তার আগে বলে রাখি আপনি যদি আমাদের ওয়েবসাইটের নতুন হয়ে থাকেন তবে অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটটি সাবস্ক্রাইব করে আমাদের সঙ্গে থাকুন এবং ইউটিউব সংক্রান্ত সকল ধরনের সমস্যার সমাধান পেতে বিডি ইউটিউব কমিউনিটি ফেসবুক পেজটি ফলো করুন।

আপনি যদি ইউটিউবে সফল হতে চান এবং ইউটিউবে একজন সফল কন্ট্রিবিউটর হতে চান তবে অবশ্যই আপনাকে চারটি বিষয় সবসময় এড়িয়ে চলতে হবে। মনে রাখবেন আজ আমি আপনাদের মাঝে যে চারটি বিষয় এড়িয়ে যাওয়ার জন্য বলব সেই, চারটি বিষয় যদি আপনি এড়িয়ে না যান তবে আপনি কখনোই একজন সফল ইউটিউবার হতে পারবেন না। আপনার পতন নিশ্চিত। হয়তো আপনি সাময়িক সময়ের জন্য ইউটিউবে সাকসেস হতে পারেন তবে এসব বিষয় এড়িয়ে না চললে খুব দ্রুতই আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি আবার ডাউন হয়ে যাবে।

যে ৪ টি ভুল ইউটিউবে কখনো করা যাবে না

এক নম্বরে আপনাকে যে বিষয়টি ইউটিউবে এড়িয়ে যেতে হবে তা হল don’t set your goal just monetization1K subscriber or 4K hours watch time। আপনার youtube চ্যানেলটি পুরান অথবা নতুন হোক না কেন আপনাকে অবশ্যই এই বিষয়টি এড়িয়ে যেতে হবে। এর অর্থ হল ইউটিউবের মনিটাইজেশন পাওয়ার জন্য 1000 সাবস্ক্রাইবার অথবা 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম প্রয়োজন এটা মাথায় রেখে কখনো কাজ করা যাবে না। এক হাজার সাবস্ক্রাইবার কবে হবে অথবা চার হাজার ঘন্টা ওয়াচ টাইম হতে কত সময় লাগবে এসব ভেবে ভেবে আপনি আপনার ইউটিউবের কনটেন্ট কোয়ালিটি আসতে আসতে নষ্ট করে ফেলেন।

don’t set your goal just monetization1K subscriber or 4K hours watch time

আপনার সাকসেস এর জন্য অবশ্যই আপনাকে লংটাইম কাজ করার চিন্তা করতে হবে। মনে রাখবেন ইউটিউব ইজ দা লং টাইম গেম। অবশ্যই আপনাকে ইউটিউবে সাকসেস হতে হলে সময় দিতে হবে এবং ধৈর্য্যসহকারে কাজ চালিয়ে যেতে হবে। আপনাকে সব সময় ভালো ভাল কনটেন্ট ইউটিউবে আপলোড করার দিকে মনোযোগী হতে হবে এবং কখনোই ইনকামের দিকে না তাকিয়ে অডিয়েন্সের চাহিদা অনুযায়ী ভিডিও তৈরি করা দিকে ফোকাস দিতে হবে। এই প্লাটফরমটি আপনাকে সফলতা শিখরে নিয়ে যাবে।

তাই আমি সবাইকে বলব ইউটিউব চ্যানেল খুলে 1000 সাবস্ক্রাইবার অথবা 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম পাওয়ার কথা চিন্তা না করে ভালো কোয়ালিটির ভিডিও তৈরী করার চেষ্টা করুন। কেননা আপনার ভিডিও কোয়ালিটি যত ভালো হবে অথবা আপনি যদি অডিয়েন্স চাহিদা অনুযায়ী ভিডিও তৈরী করতে পারেন তবে স্বাভাবিকভাবে অডিয়েন্স আপনার ভিডিওগুলো বেশি দেখবে এবং স্বাভাবিকভাবে তখন আপনার ওয়াচ টাইম বেড়ে যাবে। যখন আপনার অডিয়েন্স বাড়তে থাকবে তখন আপনার সাবস্ক্রাইব বৃদ্ধি পাবে। আর একসময় দেখা যাবে যে আপনার অনেক ভিডিও ইউটিউব এর সার্চ অপশনে প্রথম সারিতে রয়েছে। তাই আমি বলব আপনার গোল জানি হয় একজন সাকসেসফুল কন্টেন ক্রিয়েটর এবং একজন সাকসেসফুল ইউটিউবার হওয়া।

Don’t upload copyrighted content

একজন সফল ইউটিউবার হতে চাইলে আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেলে কখনোই কপি কনটেন্ট আপলোড করবেন না। যদি একান্তই প্রয়োজন হয় তবে আপনি নিজে সেই ধরনের ভিডিও সুট করে তারপর আপনার ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করুন। যদি আপনার প্রয়োজন পড়ে অর্থাৎ আপনার ভিতরে যদি কোন ধরনের ক্রিটিভিটি না থাকে। প্রথমে তার ভিডিওটি দেখুন এবং তার বিডিও থেকে ইনফরমেশন কালেক্ট করে সেগুলো নিজের মত করে সাজিয়ে। তারপর ভিডিও বানান। তারপরও অন্য কারো ভিডিও কখনোই আপলোড করবেন না অথবা হুবহু কপি করবেন না।

উদাহরণস্বরূপ- একজন ব্লগারের ভিডিও আপনার খুব ভালো লেগেছে তিনি একটি স্মার্টফোনের রিভিউ করেছে। এখন আপনি যা করবেন তা হলো ওই ব্লগার তার ভিডিওতে যে সব ইনফরমেশন স্মার্টফোনটি সম্পর্কে দিয়েছেন সেসব বিষয় কালেক্ট করবেন এবং কীভাবে তিনি কথা বলেছেন সে সম্পর্কে ধারণা নিবেন। তার প্রতিটি কথা কিভাবে উপস্থাপন করেছে সেই বিষয় একটি পরিপূর্ণ ধারণা নিয়ে আপনি নিজের মতো করে তার সাজিয়ে একটি ভিডিও তৈরি করুন। এতে আপনার তেমন কোনো ক্রিয়েটিভিটি প্রয়োজন নেই। শুধু তাই নয় এতে করে আপনার ভিডিওটি কখনও কপি হবে না।

যদি আপনি আপনার কনটেন্ট কপি করে থাকেন তবে আপনি কখনোই সাকসেস হতে পারবেন না। দেখা যাবে অদূর ভবিষ্যতে আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি মনিটাইজেশন পাওয়ার পর হঠাৎ করেই কপিরাইট স্ট্রাইক চলে আসবে এবং একারণে আপনার ইউটিউব চ্যানেলে মারাত্মক ধরনের ক্ষতি হতে পারে। আর একটা কথা সবসময় মনে রাখবেন ইউটিউব রুলস অনুযায়ী যদি তিন মাসের ভিতর তিনটি কপিরাইট স্ট্রাইক আসে তবে আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি ডিলিট হয়ে যাবে। আর যদি কোনো কারণে কপিরাইট ক্লেইম আসে তাতে আপনার ইনকামে অন্য জনকে শেয়ার করে দিতে হবে।

Don’t share your videos on social media Messages options

আমাদের ভেতরে অনেকেই আছেন যারা নিজেদের ইউটিউব চ্যানেলে কোন ভিডিও আপলোড করার পর বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া যেমন ইমু ফেসবুক হোয়াটসঅ্যাপ ইত্যাদির মেসেঞ্জার অফ অপশনে গিয়ে আপনার বন্ধুদের কাছে আপনার ভিডিওটি পাঠিয়ে দেন। এটা কখনোই করবেন না এতে করে ইউটিউবে আপনার ইম্প্রেশন নষ্ট হয়। অনেক সময় দেখা যায় যে আপনি আপনার বন্ধুর কাছে ভিডিওটি শেয়ার করার পর সে 10 সেকেন্ড দেখার পর আপনাকে বলছে যে ভিডিওটি সম্পূর্ণ দেখেছে। এতে করে আপনার অডিয়েন্স রিটেনশন কমে যাবে এবং যার ফলে আপনার CTR কমে যাবে।

আর click-through রেট কমে গেলে স্বাভাবিকভাবে আপনার ইউটিউব এর ভিডিও ইমপ্রেশন রেট কমে যাবে। আর ইউটিউবে যখন আপনার ইম্প্রেশন কমে যাবে তখন আপনার ইউটিউব এর ভিডিও গুলোর ভিউ ধীরে ধীরে ডাউন হতে থাকবে। সেজন্য এই বিষয়টি সব সময় মাথায় রাখবেন এবং মেসেঞ্জার অপশনে গিয়ে আপনার ভিডিও শেয়ার কর এখন থেকে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করুন।

Don’t watch your own video

যে ৪ টি ভুল YouTube এ কখনোই নয় তার মধ্যে তালিকার সর্বশেষ নাম্বার রয়েছে Don’t watch your own video। এটি মুলত আপনি যখন আপনার ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন পেয়ে যাবেন তখন থেকেই এগিয়ে যেতে হবে। অর্থাৎ ইউটিউব মনিটাইজেশন পাওয়ার পর আপনি আর নিজের ভিডিও নিজেই দেখবেন না। আমাদের ভিতরে অনেক চিন্তা করে থাকেন যে ইউটিউব মনিটাইজেশন পাওয়ার পর নিজের ভিডিও নিজেই দেখে আর্নিং বৃদ্ধি করবো। এটা কখনও চিন্তা করবেন না। এটা যদি আপনি করে থাকেন তবে আপনার এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয়ে যেতে পারে।

যদি কোন কারনে আপনার এডসেন্স একাউন্টে ডিজেবল হয়ে যায় তবে আপনি সে অ্যাকাউন্টে আর ফিরে পাবেন না কেননা একজন ব্যক্তির নামে একটি এডসেন্স একাউন্ট খোলা যায়। তাই এটা নিয়ে এখনই সতর্ক হোন। ইউটিউবে কখনো আপনি আপনার ভিডিও দেখবেন না। মনিটাইজেশন থাকুক অথবা না থাকুক আপনি এখন থেকে আপনার নিজের ভিডিও দেখা এড়িয়ে যান এবং মনিটাইজেশন পাওয়ার পর অবশ্যই এর চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন।

আপনি যদি আমাদের এই চারটি বিষয় মাথায় রেখে ইউটিউবে কাজ করেন তবে আমাদের বিশ্বাস আপনি খুব দ্রুত ইউটিউবে সাকসেস হবেন। তবে অবশ্যই এজন্য আপনাকে ধারাবাহিকভাবে ইউটিউবে কনটেন্ট নিয়ে কাজ করতে হবে। সব সময় চেষ্টা করবেন কোয়ালিটিফুল ভিডিও আপলোড করার এবং অডিয়েন্স যে ধরনের ভিডিও পছন্দ করে সেই ধরনের ভিডিও তৈরী করার। আজকে এ পর্যন্ত দেখা হবে পরবর্তীতে নতুন কোনো বিষয় নিয়ে ধন্যবাদ।

আপনার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

About The Author
Rafi Bhuiyan
আসসালামুয়ালাইকুম আমার নাম Rafi Bhuiyan। BD YouTube Community ওয়েবসাইট আমি পরিচালনা করি আমার সাথে আরো কয়েকজন বন্ধু আছে। পাশাপাশি আমরা বর্তমান সময় বাংলাদেশের বড় বড় ইউটিউব চ্যানেল পরিচালনার দায়িত্ব পালন করছি দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের ওয়েবসাইটে আপনার মূল্যবান সময় দেওয়ার জন্য।